/

জৈন্তাপুরে ডালিমের লাশ দাফনের ৮ঘন্টা পর ডালিমের লাশ উদ্ধার

17 mins read

জৈন্তাপুরে ডালিমের লাশ দাফনের ৮ঘন্টা পর ডালিমের লাশ উদ্ধার

সিলেটের জৈন্তাপুরে হাওর হতে উদ্ধার হওয়া ডালিমের লাশ দাফনের ৮ঘন্টা পার মাটি চাঁপা অবস্থায় সেই নিখোঁজ হওয়া ডালিমের গলাকাটা লাশ, গেঞ্জি ও শট প্যান্ট উদ্ধার করে পুলিশ। দ্বিতীয় বার ডালিমের লাশ উদ্ধার নিয়ে চিকনাগুল ইউপি জুড়ে আলোচনা সমালোচনা। বিল হতে উদ্ধার হওয়া লাশটি কার ?

এলাকাবাসী সূত্রে জানাযায়, জৈন্তাপুর উপজেলার ঘাটেরছটি গ্রামের বাচ্চু মিয়ার ছেলে ডালিম আহমদ (২২) গত ৫ মার্চ নিখোঁজ হন। নিখোঁজের ঘটনায় ৬ মার্চ বাচ্চু মিয়া জৈন্তাপুর মডেল থানায় সাধারণ ডায়েরী করেন। ৭ মার্চ বিকাল তিনটায় জৈন্তাপুর মডেল থানা পুলিশ জিডি তদন্তে যায়। তদন্তাধীন অবস্থায় পুলিশ ঘাটের ছটি বিলের তারেকের পুকুরে পা বাঁধা লাশের সন্ধান পায়।

পুলিশ দ্রæত ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশটি উদ্ধার করে। উদ্ধারকালে এলাকাবাসী ও ডালিমের পিতা সনাক্ত করেন এটি নিখোঁজ ডালিমের লাশ। পুলিশ অধিকত্বর তদন্তের জন্য উদ্ধার হওয়া লাশটি সিলেট এম.এ.জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে। ৮মার্চ বিকাল সাড়ে ৪ টায় চিকনাগুল এলাকায় শত শত মুসল্লীদের উপস্থিতিতে নিহতের ডালিমের লাশের জানাজা শেষে চিকনাগুল সামাজিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।

এদিকে লাশ দাফনের পর পুলিশ হত্যা সংঠনের প্রকৃত কারন ও ঘটনার স্থান এবং হত্যায় ব্যবহত ছোরা উদ্ধার কার্যক্রম করতে ৮মার্চ দিবাগতে রাতে অনুসন্ধান চালায়। অনুসন্ধানের এক পর্যায় রাত ১০টায় চিকনাগুল ইউপির ঘাটেরচটি নয়াটিলা জামে মসজিদ সংলগ্ন কৃষি জমিতে মাটি চাপা অবস্থায় লাশ পায় পুলিশ। এসময় হত্যায় ব্যবহৃত ছুরা ও লাশের গেঞ্জি ও শট প্যান্ট উদ্ধার করে জৈন্তাপুর মডেল থানা পুলিশ।

মাটি চাপা লাশটি উদ্ধারের পর বিভিন্ন আলামত বিশ্লেষণ করে নিখোঁজ ডালিমের লাশ বলে সনাক্ত করে পুলিশ। মাটি চাঁপা হতে লাশ উদ্ধারের পর ডালিমের পিতা ও নিকট আত্মীয়রাও উদ্ধার হওয়া লাশটি নিখোঁজ ডালিমের বলে পুনরায় সনাক্ত করেন। ডালিমের লাশ সনাক্তের পরে এলাকাজুড়ে একটাই প্রশ্ন বিলের পুকুর হতে উদ্ধার হওয়া লাশটি আসলে কার ? এনিয়ে এলাকাজুড়ে শুরু হয়েছে আলোচনা সমালোচনা।

জৈন্তাপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা গোলাম দস্তগীর আহমদ বলেন, নিখোঁজের পিতা বাচ্চু মিয়ার ও ডালিমের নিকট আত্মীয়দের দাবীর প্রেক্ষিতে ময়না তদন্তের পর বিলের পুকর হতে উদ্ধার কৃত লাশটি ডালিমের পরিবারের নিকট হস্তান্তর করা হয়। ডালিম হত্যার প্রকৃত ঘটনার রহস্য জানতে হত্যা সংগঠনের স্থান অনুসন্ধান করতে যায় পুলিশ। হত্যা সংগঠনের স্থান ঘাটেরচটি নয়াটিলা জামে মসজিদ সংলগ্ন কৃষি জমিতে অনুসন্ধান চালায় এনসয় মাটি চাপা অবস্থায় গলাকাটা লাশ পাই। পরে আমরা লাশ ও গেঞ্জি, শট প্যান্ট উদ্ধার করি। নিহতের ফিঙ্গার যাচাই করে জানতে পারি মাটি চাপা অবস্থায় উদ্ধার হওয়া লাশটি নিখোঁজ ডালিমের। অপরদিকে হাওরের পুকুর হতে উদ্ধার হওয়া লাশটি ডালিমের নয়। দাফনকৃত অজ্ঞাত পরিচয়ের লাশ সনাক্তের জন্য অনুসন্ধান চলছে। সেই সাথে দুটি লাশের মৃত্যুর কারন অনুসন্ধান করতে পুলিশের কয়েকটি টিম মাঠে কাজ করছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Latest from Blog

x
English version