তাৎক্ষণিক জন্ম নিবন্ধন সংশোধনের উদ্যোগ প্রশাসনের

19 mins read

একাধিক জন্ম নিবন্ধন, অপ্রয়োজনে ইউনিয়ন পরিষদ থেকে জন্ম নিবন্ধন তৈরী, বয়স কমিয়ে বাড়িয়ে জন্ম নিবন্ধন করার কারণে সার্ভারে দেশে বর্তমান জনসংখ্যার চেয়ে প্রায় দেড়গুন মানুষের জন্ম নিবন্ধনের তথ্য রয়েছে।
জটিলতা নিরসনের জন্য ২০২১ সালের শেষের দিকে ইউনিয়ন পরিষদের পাশাপাশি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের দায়িত্বদেয় সরকার। জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করতে গিয়ে নানা জটিলতায় হয়রানির শিকার হন সেবাগ্রহীতারা।
মুজিব বর্ষ ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিন উপলক্ষ্যে মুক্তির উৎসব ও সুবর্ণজয়ন্তী মেলা উপলক্ষ্যে ১ঘন্টায় জন্ম নিবন্ধন সংশোধনের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে ময়মনসিংহ জেলার ত্রিশাল উপজেলা প্রশাসন। গ্রাহক হয়রানি লাঘবের পাশাপাশি সেবা পাচ্ছেন প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে ঘুরতে আসা দর্শনার্থীসহ সেবাগ্রহীতারা।
বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হওয়া ৭ দিনব্যাপী মেলায় উপজেলা প্রশাসনের স্টলে আগামী বুধবার পর্যন্ত এ সুযোগ পাবে সেবাগ্রহীতারা।
জানাযায়, সরকার জন্ম নিবন্ধন করা, সংশোধন, সংযোজনের দায়িত্ব দিয়েছিল ইউনিয়ন পরিষদকে। একাধিক জন্ম নিবন্ধন তৈরী, প্রয়োজনে বয়স কমিয়ে বাড়িয়ে নতুন জন্মনিবন্ধন, বাল্য বিয়ের জন্য সাময়িক জন্মনিবন্ধন তৈরীর কারণে জনসংখ্যার চেয়ে বেশী জন্মনিবন্ধনধারী দেখা যায় সার্ভারে। এই জটিলতা নিরসনে সরকার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দেয় সংশোধনের জন্য।
কিন্তু প্রয়োজনীয় প্রমাণ ও একাধিক জন্ম নিবন্ধন সার্ভারে থাকায় শুনানি সাপেক্ষে সংশোধন করতে গিয়ে দীর্ঘদিন অপেক্ষা করতে হয় সেবা গ্রহীতাদের। এই হয়রানি বন্ধ করতে ত্রিশাল উপজেলা প্রশাসন মুক্তির উৎসব ও সুবর্ণজয়ন্তী মেলা উপলক্ষ্যে প্রয়োজনীয় প্রমাণ উপস্থাপন সাপেক্ষে জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করে দিচ্ছে তাৎক্ষণিক। এতে একদিকে যেমন গ্রহক হয়রানি বন্ধ হচ্ছে অন্য দিকে ভুয়া জন্ম নিবন্ধন বাতিল হচ্ছে সহজে।
উপজেলা প্রশাসন সুত্রে জানাযায় গত ছয় মাসে ত্রিশাল উপজেলায় প্রায় ৫ হাজার সংশোধনীর আবেদন জমা হয়। প্রয়োজনীয় প্রমাণ উপস্থাপন না করা, বয়সের সার্টিফিকেট উপস্থাপন না করা, শুনানিতে অংশগ্রহণ করার জন্য পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত না হওয়ায় ভুগান্তিতে পড়তে হয় সেবা গ্রহিতাদের। তাছাড়া সার্ভার সমস্যার কারণেও সেবা দেওয়া যায়না স্বাভাবিকভাবে। কিন্তু মেলায় সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত উপজেলা প্রশাসনের ষ্টলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ষ্টলে উপস্থিত থেকে প্রমাণ সাপেক্ষে তাৎক্ষনিক সংশোধন করে দিচ্ছেন জন্মনিবন্ধন।
শফিকুল ইসলাম নামে এক সেবাগ্রহীতা বলেন, আগে জন্ম নিবন্ধন সংশোধনে সেবাগ্রহীতাদের দীর্ঘ ভোগান্তি পোহাতে হতো। জন্ম নিবন্ধন করতে দিনের পর দিন এমনকি মাসও লেগে যেতো। এভাবে জন্ম নিবন্ধন সহজ হওয়ায় এখন আমরা অল্প সময়েই নিবন্ধন করতে পারব। এই বিশেষ উদ্যোগের জন্য ধন্যবাদ জানায় উপজেলা প্রশাসনকে।
উপজেলার আইসিটি টেকনিশিয়ান মোজাম্মেল হক বলেন, এটি উপজেলা প্রশাসনের একটি ইনোভেশন। সেবার মানটা আরও ভালো দেওয়া সম্ভব যদি সারাক্ষণ সার্ভার সচল থাকে। এ বিষয়ে মাইকিং করে জনগণকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে বলেও তিনি জানান।
এ বিষয়ে ইউএনও মো. আক্তারুজ্জামান বলেন, মুক্তির উৎসব ও সুবর্ণজয়ন্তী মেলা উপলক্ষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা মোতাবেক এই উদ্যোগ বাস্তবয়ায়নের চেষ্টা করছি। জন্ম নিবন্ধন সংশোধনের জন্য সংশোধিত বিষয়ের উপর কি কি ডকুমেন্টস প্রয়োজন হবে তা লিপিবদ্ধ করে স্টলের সামনে টানিয়ে দেওয়া হয়েছে বলেও তিনি জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Latest from Blog

x
English version