নবীগঞ্জে টিসিবির পণ্যে ওজনে কম দেয়ার অভিযোগে বিক্ষোভ ঘটনাস্থলে ইউএনও-এসিল্যান্ড

15 mins read

হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলায় ফ্যামিলি কার্ডের মাধ্যমে টিসিবি পণ্য বিতরণকালে ওজনে কম দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় তাৎক্ষণিক বিক্ষোভ করেছেন এলাকাবাসী। মঙ্গলবার (২২ মার্চ) দুপুরে নবীগঞ্জ উপজেলার দেবপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ প্রাঙ্গণে এ ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, পবিত্র রমজান উপলক্ষে ভর্তুকি মূল্যে সারা দেশে এক কোটি পরিবারের কাছে টিসিবি নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য বিক্রি করছে। এ কার্যক্রমের অংশ হিসেবে উপজেলার দেবপাড়া ইউনিয়নে ফ্যামিলি কার্ডের মাধ্যমে এক হাজার ৩৫টি পরিবারের মাঝে সরকারি ভর্তুকি মূল্যে ২ কেজি চিনি, ২ কেজি মসুর ডাল, ২ লিটার সয়াবিন তেল মোট ৪৬০ টাকার প্যাকেজে বিতরণ করার নির্দেশনা রয়েছে। মঙ্গলবার সকাল থেকে হিমাংশু শেখর রায়ের মালিকানাধীন মেসার্স সুরমা ট্রেডার্স দেবপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ প্রাঙ্গণে পণ্য বিতরণ কার্যক্রম শুরু করেন। এ সময় চিনি ও ডাল ওজনে কম দেয়া হচ্ছে বলে সন্দেহ হয় কার্ডধারী সুবিধাভোগীদের। পরে ওজন করে দেখা যায়, চিনি ২ কেজির জায়গায় এক কেজি ২০০ গ্রাম দেয়া হচ্ছে।
জনৈক এক সুবিধাভোগী বলেন, আমাকে এক কেজি ৫০০ গ্রাম চিনি এবং এক কেজি ৮০০ গ্রাম ডাল দেয়া হয়েছে। এ বিষয়ে প্রতিবাদ করলেও সংশ্লিষ্ট ট্যাগ অফিসার কোনও ব্যবস্থা নেননি। এ ঘটনার পর এলাকাবাসী দেবপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ প্রাঙ্গণে বিক্ষোভ করেন। খবর পেয়ে নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ মহিউদ্দিন এবং উপজেলা সহকারী কমিশনার উত্তম কুমার দাশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করেন।

এ ব্যাপারে দেবপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাহ রিয়াজ নাদির সুমন বলেন, টিসিবির পণ্যে ওজনে কম দেয়া হচ্ছে, এমন অভিযোগ করেন কয়েকজন সুবিধাভোগী। বিষয়টি প্রশাসনকে অবহিত করলে ইউএনও-এসিল্যান্ড সাহেব ঘটনাস্থলে এসে ওজনে কম দেয়ার সত্যতাও পান। পরে উপস্থিত কার্ডধারীদের সঠিকভাবে ২ কেজি করে মেপে চিনি ও ডাল দেয়া হয়েছে।

অভিযোগের বিষয়ে মেসার্স সুরমা ট্রেডার্সের স্বত্বাধিকারী হিমাংশু শেখর রায় বলেন, টিসিবির পণ্য প্যাকেটিং করা হয় শায়েস্তাগঞ্জ গুদামে। সেই প্যাকেট খোলার কোনও সুযোগ নেই। গুদাম থেকে প্যাকেটে পণ্য কম দেয়া হয়েছে।

এসিল্যান্ড উত্তম কুমার দাশ বলেন, কার্ডধারীদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায় প্যাকেটে চিনির পরিমাণ কম। তাৎক্ষণিক ডিলারের পক্ষ থেকে যে সব প্যাকেটে কম রয়েছে সেগুলোর ওজন সঠিকভাবে মেপে পণ্য সরবরাহ করা হয়েছে। প্রতিটি প্যাকেটে কেন কম দেয়া হয়েছে এ ব্যাপারে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ইউএনও শেখ মহিউদ্দিন বলেন, বেশ কিছু প্যাকেটে চিনির পরিমাণ কম রয়েছে এমন অভিযোগে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। প্রাথমিকভাবে মনে হয়েছে, শায়েস্তাগঞ্জে গুদামে সারা জেলার প্যাকেটিং করা হয়, হয়তো সেখানে কিছু প্যাকেটে ভুলবশত কম দেয়া হয়েছে। বিষয়টি আমরা খতিয়ে দেখা হবে ৷

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Latest from Blog

x
English version